চকরিয়ার দস্যুরাণী আরজ খাতুন বড় মাপের মাফিয়া, আনছুর-আরজকে মাইনাস ফর্মুলায় ফেলার দাবী

আমিরুল ইসলাম রাশেদ, পেকুয়া(কক্সবাজার) প্রতিনিধি

আরজ খাতুন। চকরিয়ার ঢেমুশিয়া ইউনিয়ন পরিষদের মহিলা মেম্বার। বিগত সময়ে অস্ত্রসহ গ্রেফতার হয়ে আরজ খাতুন দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজার জেলা কারাগারের মহিলা ওয়ার্ডে কারাভোগ করেছে। কারাগারেই এক সন্তানের জন্ম হয়েছিল। ঢেমুশিয়া ইউনিয়নে তার একটি দস্যু বাহিনী রয়েছে। এই বাহিনীর প্রধান আরজ খাতুন নিজেই। দস্যু আরজ বাহিনীর সদস্যরা এলাকায় কাউকে পরোয়া করেনা। বাহিনীর সদস্যরা এলাকায় চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি, মাদক ব্যবসাসহ এমন কোন অপকর্ম নাই যা সংগঠিত করছে না। এলাকার সবাই কোনঠাসা এ বাহিনীর কাছে।  আরজ খাতুন বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে বহু মামলা চলমান রয়েছে। আরজ খাতুন একজন বড় মাপের মাফিয়া। আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে আটক হলে তার মুখ দিয়ে বের হবে মাফিয়াগিরি।

গত কদিন আগে বৃদ্ধ নুরুল আলমকে নির্যাতনের ঘটনায় দস্যুরাণী আরজ খাতুন বাহিনীর অপকর্ম উঠে আসে। যুবলীগ নেতা আনছুর প্রকাশ্যে বৃদ্ধ নুরুল আলমের পরনের বস্ত্র হরণ করেছে। যুবলীগ নেতা আনছুর আরজ খাতুনের সেকেন্ড ইন্ড কমান্ড। বৃদ্ধ নুরুল আলমের বস্ত্র হরণের ঘটনায় চকরিয়া থানায় মামলা হয়েছে। মামলার পর থেকে দস্যুরাণী আরজ খাতুন ও তার বাহিনীর সেকেন্ড কমান্ডার যুবলীগ নেতা আনছুর হাওয়ায় মিলিয়ে গেলো। পুলিশ তাদের নাগাল পাচ্ছেনা। এলাকাবাসির গন দাবী তাকে দ্রুত গ্রেফতার করা হোক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *