পেকুয়ায় বিধবা নারীর উপর হামলা ও ঘর ভাংচুর আহত৭

পেকুয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার মগনামা মরিচ্যাদ্বিয়া এলাকার জমি সংক্রান্ত বিরোধে আদালতের নির্দেশনা অমান্য করে বিধবা নারীর ঘর ভাংচুর করে বিলিন করে দিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা এবং সেই বিধবা নারী মৃতু নুরুল ইসলামের স্ত্রী হোসনারা বেগম সহ ৭ জন্যের উপর হামলা করেছে । হোসনেয়ারা এক মাত্র থাকার জায়গা কুড়ে ঘর, তিনি ভিক্ষা করে জীবন জাপন করতেন,একমাত্র মেয়ে নিয়ে থাকতেন সেই ঘরে,সেটা এখন বিলিন করে দিয়েছেন স্থানীয় ছৈয়দ নুর গংয়েরা।

অন্য আহতরা হলেন, নুর সুলতানের স্ত্রী জোবাইদা বেগম, সাহাব উদ্দীনের স্ত্রী রেজিয়া বেগম, মফিজ উদ্দীনের স্ত্রী ফরিজ খাতুন, মাইন উদ্দীনের স্ত্রী আয়েশা বেগম, নুরুল আলমের স্ত্রী চেনুয়ারা বেগম, নুর উদ্দীনের স্ত্রী নুরুন্নাহার।
এদের মধ্যে হোসনেয়ারার অবস্থা গুরতর হওয়ায় তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চমেক হাসপাতালে রেফার করা হয়াছে। 

( ২৮শে সেপ্টেম্বর)  সকাল১১টার দিকে মগনামা ইউনিয়েনে মরিচ্যাদ্বিয়া এলাকায় সাহাব উদ্দীনের বসতভিটায় এই ঘটনা ঘটে।

হামলাকারী হলেন, ছৈয়দ নুরের পুত্র জসিম উদ্দীন আব্বাস উদ্দীন,  আমীর হোছাইন ও স্থানীয় আব্দুল্লাহ পুত্র  ইউপি সদস্য জায়দুল হক, আজিজুর রহমানের পুত্র গিয়াস উদ্দীন, আলী হোছাইনের পুত্র জসিম উদ্দীন, পুতুর পুত্র আরিফ, ছিদ্দীকের পুত্র মুসলেম, আব্দুল গণীর পুত্র আজু, নাছির উদ্দীনের পুত্র তৈয়ব।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সাহাব উদ্দীনের দখলীয় জমি নিয়ে স্থানীয় ছৈয়দ নুরের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসতেছিল, আজ সকাল ১১ টার দিকে সাহাব উদ্দীনের বাড়িতে পুরুষ লোকজন না থাকায় এই শুভাধে ছৈয়দ নুর গংয়েদের নেতৃত্বে তাদের বসতভিটায় হামলা চালিয়ে তাদের সৎ মা হোসনেয়ারা বেগমের ঘর ভাংচুর করে বিলিন করে দেয়। হোসনেয়ারারা বাধা দিতে গেলে তাঁদের উপর হামলা করে, পরে তাদের পুরুষরা খবর পেলে তাদেরকে আহত অবস্তায় দেখে তখন তারা হাসপিটালে আনতে চাইলে বাধা প্রধান করে পরে ৯৯৯ নাম্বারে কল দিয়ে পুলিশ পাহারা দিয়ে সবাইকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।
ভুক্তভোগী শাহাব উদ্দিন জানান, যে জমি নিয়ে বিরোধ চলছে সেটার উচ্চ আদালতে মামলা চলমান তাঁরা তারা আদালতকে অমান্য করে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী মহলের ইশারায় জবরদখল করতেছে।

এই বিষয়ে পেকুয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) সাইফুল  রহমান মজুমদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি শুনেছি অভিযোগ পেলে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।








Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *